সাইবার জগতে বাংলা ভাষার সার্বজনীন গ্রহণযোগ্যতা নিশ্চিত করতে ই-মেইল এর ক্ষেত্রেও বাংলা ভাষা ও স্ক্রিপ্ট ব্যবহারের সুযোগ চেয়েছে বাংলাদেশ। একইসঙ্গে ইন্টারনেট দুনিয়ায় অ্যাপ্লিকেশন, ডিভাইস এবং সিস্টেমগুলো যেনো স্থানীয় ভাষাবন্ধব হয় এবং এর ব্যবহার বারে সে দিকেও আলোকপাত করেছেন খাত সংশ্লিষ্টরা।


ইউনির্ভার্সেল একসেপ্টেন্স ডে ২০২৩ উপলক্ষে সোমবার রাজধানীর রমনার বিটিআরসি সম্মেলন কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত দুই দিনের সম্মেলনের প্রথম দিন এমন দাবি তোলেন বক্তারা।


ইন্টারনেট কর্পোরেশন ফর অ্যাসাইনড নেমস অ্যান্ড নাম্বারস (ICANN) এর সহযোগিতায় যৌথভাবে দেশে প্রথমবার এই অংশীজন সভার আয়োজন করে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (BTRC) এবং বাংলাদেশ ইন্টারনেট গভর্ন্যান্স ফোরাম (BIGF)।


দুপুরে সম্মেলনের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার। প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, বাংলা ভাষার সমস্যা সমাধানে প্রধনমন্ত্রী চাঁদে যেতেও বাধা দেবেন না। তাই বিসিসি যেনো পরবর্তী কনসোর্টিয়ামের বৈঠকে যোগ দিতে তৎপর হয়।


মন্ত্রী বলেন, ভাষা ভিত্তিক দেশ হিসেবে ভাষা নিয়ে বিভাজনের কোনো সুযোগ নেই। আমরা এক্ষেত্রে একসঙ্গে কাজ করবো।


বিটিআরসি চেয়ারম্যান (সিনিয়র সচিব) শ্যাম সুন্দর সিকদারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্যে বিগ্রেডিয়ার জেনারেল এহসানুল কবির আশাবাদ ব্যক্ত করেন, ভবিষ্যতে কোনো ডিভাইস চালু করার সময় বাংলাভাষায় স্বাগত জানাবে। এজন্য বিটিআরসি আইকানের সঙ্গে নিবিঢ়ভাবে কাজ করছে বলে জানান তিনি।


সম্মিানিত অতিথির বক্তব্যে বিআইজিএফ চেয়ারম্যান এবং তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্ট্যান্ডিং কমিটির সভাপতি হাসানুল হক ইনু বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ না হলে বিশ্বের অগ্রযাত্রা থেকে ছিটকে পড়তো। ইন্টারনেট সংযুক্তির মাধ্যমে বাংলাদেশ চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের সঙ্গে রাষ্ট্র, সমাজ ও ব্যক্তিকে খাপ খাইয়ে নিতে স্মার্ট বাংলাদেশ বাস্তবায়ন করতে হবে। স্মার্ট জনগণই এই শিল্পবিপ্লবকে সফল করবে। এক্ষেত্রে মাতৃভাষায় ইন্টারনেট ব্যবহার বাড়ানোর প্রস্তাব দিয়ে  ভাষার প্রতিবন্ধকতা দূর করতে মন্ত্রণালয় পর্যায়ে দূরত্বের বিষয় টেনে আনেন তিনি।


একইসঙ্গে ডটবাংলা’র বর্ণসঙ্কট দূর করার আহ্বান জানিয়ে অচিরেই একটি বাংলাভাষার কন্টেন্ট ব্যাংক গঠনের দাবি জানান হাসানুল হক ইনু।


অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ  আবু হেনা মোরশেদ জামান, বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের  নির্বাহী পরিচালক রণজিৎ কুমার। সরকারের কৃচ্ছ্রতা নীতির কারণে এবার বিসিসি ইউনিকোড কনসোর্টিয়ামে যোগ দিতে পারেনি বলে জানান রণজিৎ কুমার।    


আর অংশীজন সভার পাশাপাশি খেটে খাওয়া কৃষক মজুরদের এই উদ্যোগের সঙ্গে সংযুক্ত করার আহ্বান জানান ডাক ও টেলিযোগাযোগ সচিব  আবু হেনা মোরশেদ জামান,।


আর সভাপতির বক্তব্যে প্রযুক্তিতে বাংলা ভাষার ব্যবহার বাড়াতে প্রচার প্রচারণা বাড়ানোর কথা বলেন বিটিআরসি চেয়ারম্যান।


অনুষ্ঠানে ভিডিও বার্তা দেন আইকান গ্লোবাল ডোমেইন অ্যান্ড স্ট্র্যাটেজি বিভাগের এসভিপি তেরেসা স্যুইনহার্ট। এরপর মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বিআইজিএফ সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মাদ আব্দুল হক অনু।


এর আগে সকালের নেটওয়ার্কিং অধিবেশনে মূল প্রবন্ধ পেশ করেন বিএনএনআরসি সিইও এএইচএম বজলুর রহমান। সিটি ইউনির্ভার্সিটির কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল অনুষদের প্রধান অধ্যাপক সাফায়েত হোসেনের সঞ্চালনায় সচেতনতামূলক উপস্থাপনা দেন আইকান আইডিএন প্রোগ্রাম সিনিয়র ম্যানেজার পিতিনান কোরমোরপান্তা।    অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে সংসদ সদস্য আফরোজা হক রিনা, বিটিআরসির মহাপরিচালক নাসিম পারভেজ, প্রযুক্তিতে বাংলা ভাষা সমৃদ্ধকরণ প্রকল্প পরিচালক মাহবুব করিম প্রমুখ।  


এই দিনটি উদযাপনের মাধ্যমে, স্থানীয় পর্যায়ের অংশগ্রহণকারীরা সার্বজনীন গ্রহণযোগ্যতা সম্পর্কে আরও সচেতন এবং উদ্যোগী করে তোলা, সেইসাথে সংশ্লিষ্ট বিষয়ে আঞ্চলিক এবং বিশ্ব সম্প্রদায় এবং সংস্থাগুলির সাথে আরও নিবিড়ভাবে এবং সমন্বিতভাবে কাজ করার ক্ষেত্রকে প্রশস্ত করবে। অনুষ্ঠানটি ইউনিভার্সাল অ্যাকসেপ্টেন্স স্টিয়ারিং গ্রুপ (UASG), ICANN, আঞ্চলিক এবং আন্তর্জাতিক অংশীদারদের দ্বারা এবং ইউনিভার্সাল অ্যাকসেপ্টেন্স ট্রেনিং, সচেতনতা এবং কৌশলগুলির উপর বিভিন্ন সেশন দ্বারা আয়োজন করা হয়।


সার্বজনীন গ্রহণযোগ্যতা এবং এর প্রযুক্তিগত প্রভাব রয়েছে যা ইন্টারনেটে সমস্ত ডোমেইন নাম এবং ইমেল ঠিকানাগুলিকে অনুমতি দেবে, স্ক্রিপ্ট, ভাষা বা চরিত্র নির্বিশেষে, অ্যাপ্লিকেশন, ডিভাইস এবং সিস্টেম জুড়ে ক্রমবর্ধমানভাবে ব্যবহার করা হবে৷ উপরন্তু, ই-মেইল অ্যাড্রেস ইন্টারন্যাশনালাইজেশন (EAI) স্ট্যান্ডার্ডের সর্বজনীন স্বীকৃতি ই-মেইলে স্থানীয় ভাষা এবং স্ক্রিপ্ট ব্যবহারের অনুমতি দেবে। এক্ষেত্রে, ব্যবসা সম্প্রসারণ ও উৎকর্ষের জন্য দীর্ঘমেয়াদী সংগ্রামে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান ও ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানগুলোর নিরন্তর বিকশিত ডোমেইন নামের সাথে নিজেদের খাপ খাইয়ে নেওয়ার বিকল্প নেই।


অনুষ্ঠানে সরকারি দপ্তরের প্রতিনিধি, সুশীল সমাজ, বেসরকারি সংস্থা, একাডেমিয়া, মিডিয়া ও প্রযুক্তিবিদ এবং সকল স্টেকহোল্ডাররা উপস্থিত ছিলেন।


ইউএন গ্লোবাল ডিজিটাল কমপ্যাক্ট বিষয়ে সচেতনতা উপস্থাপনা, প্রোগ্রামিং প্রশিক্ষণ, ইমেল প্রশাসন, UA এর জন্য প্রশিক্ষণ এবং প্রযুক্তিগত ওভারভিউ তৈরি করা।


আন্তর্জাতিকীকৃত ডোমেইন নেম (IDNs) সারা বিশ্বের মানুষের স্থানীয় ভাষা এবং স্ক্রিপ্টে ডোমেন নাম ব্যবহার করতে সক্ষম করে। আরবি, চীনা, সিরিলিক বা দেবনাগরির মতো বিভিন্ন স্ক্রিপ্টের অক্ষর ব্যবহার করে IDN তৈরি করা হয়। এগুলি ইউনিকোড স্ট্যান্ডার্ড দ্বারা এনকোড করা হয় এবং প্রাসঙ্গিক IDN প্রোটোকল দ্বারা অনুমোদিত হিসাবে ব্যবহৃত হয়।


IDN ব্যবহার করে বহুভাষিক ইন্টারনেটের উন্নয়ন ও প্রচারে সহায়তা করার জন্য ICANN IDN প্রোগ্রাম চালু করে। প্রোগ্রামটি প্রাথমিকভাবে IDN কান্ট্রি কোড TLDs এবং জেনেরিক TLDs সহ IDN টপ-লেভেল ডোমেন (TLDs) এর পরিকল্পনা ও বাস্তবায়নের উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে। IDN প্রোগ্রামটি ডোমেইন নেম সিস্টেমের দ্বিতীয় স্তরে IDN-এর কার্যকর ব্যবহারের দিকে তৈরি প্রকল্পগুলিকেও সমর্থন করে, যা সম্প্রদায়ের দ্বারা নির্দেশিত।