ট্রান্সফরমারস-ওয়ার ফর সাইবারট্রন


ট্রান্সফরমারস নাম শুনলেই সবার আগে ট্রান্সফরমারস মুভির কথা মনে হওয়াটা স্বাভাবিক, কিন্তু মুভি বের হওয়ার অনেক আগে থেকেই এটি একটি জনপ্রিয় অ্যানিমেটেড টিভি সিরিজ তা হয়তো অনেকেরই অজানা। যে গেমটি নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে সেটি হচ্ছে ট্রান্সফরমারস- ওয়ার ফর সাইবারট্রন। এটি মূলত টিভি সিরিজ ট্রান্সফরমারস-প্রাইমের কাহিনীর সাথে মিল রেখে বানানো হয়েছে, তবে গেমের কাহিনীর পটভূমি বেশ আগের যখন ট্রান্সফরমার নামের অতি উন্নত রোবটরা তাদের নিজেদের গ্রহ সাইবারট্রনে বাস করতো। সেখানে অটোবটস ও ডেসেপ্টিকনস নামের ভিন্ন দুই রোবট জাতির ক্ষমতা দখলের লড়াই নিয়েই গেমের কাহিনী গড়ে উঠেছে।


গেমটি ডেসেপ্টিকনস ও অটোবটস দুটি আলাদা জাতিকে নিয়েই খেলা যাবে তবে ডেসেপ্টিকনস নিয়ে আগে খেলতে হবে- কারণ, তা নাহলে অটোবটস ক্যাম্পেইনের কাহিনী ঠিকমতো বোঝা যাবে না। কেননা ডেসেপ্টিকনস ক্যাম্পেইনে দেখানো কাহিনীর সূত্র ধরেই অটোবটস ক্যাম্পেইনের কাহিনী এগিয়ে গেছে। গেমটির মজার দিক হচ্ছে একসাথে তিনজন ট্রান্সফরমার নিয়ে খেলা যাবে, দুটি ক্যাম্পেইনেই এই সুবিধা দেয়া আছে, গেমার একটি রোবটকে নিয়ন্ত্রণ করবে এবং বাকি দুজনকে নিয়ন্ত্রণ করবে কমপিউটার, তবে গেমারের ইন্টারনেট সংযোগ থাকলে ল্যানের মাধ্যমে বন্ধুরা ইচ্ছে করলে অন্য পিসি থেকে বাকি দুটো রোবটকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারবে।


গেমের মাল্টিপ্লেয়ার সেকশনে রাখা হয়েছে অনেক ধরনের মাল্টিপ্লেয়ার মোড। মাল্টিপ্লেয়ার মোডগুলো সাজানো হয়েছে অন্যান্য সফল ও জনপ্রিয় গেমের মাল্টিপ্লেয়ার মোডের সাথে মিল রেখে। গেমের মাল্টিপ্লেয়ার মোডগুলোর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে ‘এসক্যালেশন’ মোড। এখানে একের পর এক শত্রু আসতে থাকবে এবং গেমারকে তার রোবট নিয়ে তাদের ধ্বংস করতে হবে এবং সাথে সাথে আত্মরক্ষার ব্যাপারেও সচেতন থাকতে হবে। প্রতি লেভেলে গেমারের রোবটের ক্ষমতা বাড়বে এবং নতুন নতুন অস্ত্র আনলক হবে। এছাড়া প্রতিটি শত্রু মারার জন্য গেমার কিছু পয়েন্ট পাবে। সে পয়েন্টের বিনিময়ে নতুন অস্ত্র, গুলি, জীবনীশক্তি ইত্যাদি কিনে নিতে পারবে এবং পুরনো অস্ত্রের ক্ষমতা বাড়িয়ে নিতে পারবে ও গেমের ম্যাপে নতুন লোকেশন আনলক করে নিতে পারবে। তবে নতুন ক্যারেক্টার ও অস্ত্র আনলক করার জন্য মূল ক্যাম্পেইন মোডে নির্দিষ্ট স্টেজ পার করতে হবে। ‘ডেথম্যাচ’ মোডে গেমারকে যেকোনো একটি ট্রান্সফরমার ক্যারেক্টার নিয়ে খেলতে হবে এবং একটি নির্দিষ্ট সময় পর যে সবচেয়ে বেশি শত্রু নিধন করতে পারবে সে বিজয়ী হবে। ‘টিম ডেথম্যাচ’ অনেকটা ডেথম্যাচ মোডের মতোই, তবে এখানে গেমারকে ডেসেপ্টিকনস বা অটোবটস যেকোনো এক পক্ষের হয়ে খেলতে হবে এবং যে টিম একটি বেঁধে দেয়া সময় পরে কতবার একে অপরের প্লেয়ারকে মেরেছে তার হিসেব অনুযায়ী যেকোনো এক টিমের জয় নির্ধারিত হবে। ‘কনকোয়েস্ট’ মোডে গেমারকে বিভিন্ন নির্দিষ্ট স্থান বা ঘাঁটি দখল করতে হবে এবং সেটির সুরক্ষা নিশ্চিত করতে হবে। এভাবে গেমের শেষে কোন প্লেয়ার কতগুলো ঘাঁটি নিজের আওতায় রেখেছে তার ওপর নির্ভর করে বিজয়ী নির্ধারণ করা হবে। ‘কাউন্ট ডাউন টু এক্সটিংকশন’ মোডে গেমারকে বিপরীত পক্ষের ঘাঁটিতে গিয়ে বোমা সেট করে আসতে হবে। এই মোডটি অনেকটা হালো গেমের ‘অ্যাসল্ট’ মাল্টিপ্লেয়ার মোডের মতো। এছাড়া এর অন্যান্য মাল্টিপ্লেয়ার মোড হচ্ছে পাওয়ার স্ট্রাগল ও কোড অব পাওয়ার।


গেমে চারটি আলাদা ক্লাস বা শ্রেণীর ট্রান্সফরমার নিয়ে খেলা যাবে। এগুলো হচ্ছে লিডার, সোলজার, সায়েন্টিস্ট ও স্কাউট। লিডার ট্রান্সফরমার রোবটগুলো সাধারণত পরিবর্তিত হয়ে বড় আকারের ট্রাকে পরিণত হতে পারে। উদাহরণস্বরূপ বলা যায়, অটোবটসদের লিডার অপটিমাস প্রাইম পরিবর্তিত হয়ে মালবাহী বিশাল ট্রাকে পরিণত হতে পারে। সোলজার ক্লাসের ট্রান্সফরমাররা পরিবর্তিত হয়ে ট্যাঙ্কে রূপান্তরিত হতে পারে। এছাড়া সায়েন্টিস্ট ও স্কাউট ক্লাসের রোবটগুলো যথাক্রমে প্লেন ও রেসিং কারে পরিণত হতে পারে।


ডেসেপ্টিকনস ক্যাম্পেইনের কাহিনীতে দেখা যাবে ডেসেপ্টিকনদের উচ্চাকাঙ্ক্ষী লিডার মেগাট্রন পুরো সাইবারট্রন গ্রহটিকে নিজের কব্জায় নিয়ে নিতে আগ্রহী হয়ে ওঠে। এজন্য সে সাইবারট্রন গ্রহের কোর বা চালিকাশক্তিতে অন্য আরেকটি শক্তিশালী কোর (যা ডার্ক এনার্গন নামে পরিচিত) দিয়ে সংক্রমিত করতে উদ্যত হয়, কিন্তু এ কাজটি করার জন্য তাকে গ্রহের অভ্যন্তরে যাবার দরজা খুলতে হবে এবং দরজা খোলার জন্য একটি চাবি দরকার। চাবিটির ব্যাপারে জানে কেবল একজন এবং সে হচ্ছে অটোবটসদের লিডার জেটা প্রাইম। তাই মেগাট্রন জেটা প্রাইমকে লড়াইয়ে পরাজিত করে ও তাকে বন্দী বানিয়ে তার কাছে চাবির ব্যাপারে জানতে চায়। উত্তরে জেটা প্রাইম জানায় দরজা খোলার জন্য কোনো আলাদা চাবি নেই, বরং ‘ওমেগা কী’ নামের একটি শক্তিশালী অটোবটস নিজেই সেই দরজার চাবি। তখন মেগাট্রন ওমেগা কীকে পরাস্ত করার জন্য তার সর্বশক্তি প্রয়োগ করে এবং ওমেগাকে শেষ পর্যন্ত পরাস্ত ও বন্দী করে নেয়। তারপর ডার্ক এনার্গনের সাহায্যে গ্রহের কোরকে সংক্রমিত করে ফেলে, যার ফলে সেই গ্রহ অটোবটসদের বসবাসের অযোগ্য হয়ে পড়ে। এভাবেই ডেসেপ্টিকনস ক্যাম্পেইনের কাহিনীর ইতি টানা হয়েছে। কিন্তু অটোবটস ক্যাম্পেইনের শুরুতেই দেখা যাবে অটোবটসদের মধ্যে জেটা-প্রাইমের মৃত্যুর গুজব উঠলে অটোবটসদের কাউন্সিল থেকে অপ্টিমাস প্রাইমকে অটোবটদের লিডার বানিয়ে দেয়া হয়। তখন অপ্টিমাসকে নিয়ে গেমারকে ডেসেপ্টিকনদের বিরুদ্ধে খেলতে হবে। খেলার এক পর্যায়ে অপটিমাস জেটা-প্রাইমের কাছ থেকে রেডিও সিগন্যাল পেয়ে জানতে পারবে যে জেটা-প্রাইম মারা যায়নি এবং সে ডেসেপ্টিকনদের কারাগারে বন্দী অবস্থায় আছে, তখন অপটিমাস তার দুই সহযোগী ট্রান্সফরমার বাম্বলবি ও সাইড-উইপসকে নিয়ে জেটা-প্রাইমকে উদ্ধার করার মিশনে নামে এবং সফলতার সাথে জেটা-প্রাইমকে মুক্ত করে আনে। তারপর জেটা-প্রাইমের কাছ থেকে অপটিমাস ও অটোবটদের কাউন্সিল মেগাট্রনের ভয়ানক পদক্ষেপের ব্যাপারে জানতে পারে এবং তখন কাউন্সিল আবার অপটিমাস ও তার সহযোগী ট্রান্সফরমারদের দায়িত্ব দেয় মেগাট্রনের নেয়া পদক্ষেপের বিরুদ্ধে কিছু করার জন্য। এরপর গেমারকে অপটিমাসকে নিয়ে ওমেগা-কী নামের রোবটকে মুক্ত করতে হবে এবং তাকে নিয়ে গ্রহের কোরে পৌঁছে মেগাট্রনের সাথে মোকাবেলা করতে হবে।


গেমের গ্রাফিক্স মাঝারি ধরনের। তবে ডেভেলপাররা গেমের গ্রাফিক্সের ওপর জোর না দিয়ে গেম খেলার মসৃণতা ও গেম-প্লের দিকে বেশি জোর দিয়েছেন। গেমে যখন ইচ্ছে তখন রোবট হিসেবে বা পরিবর্তিত হয়ে গাড়িতে বা প্লেনে পরিণত হয়ে যাওয়া যাবে। এ ছাড়া ভারি আকারের অস্ত্র, কামান ও মেশিনগান তো রয়েছেই।


ডেভেলপার : হাই মুন স্টুডিও

পাবলিশার : অ্যাক্টিভিশন

ইঞ্জিন : আনরিয়েল ইঞ্জিন ৩

ক্যাটাগরি : অ্যাকশন-অ্যাডভেঞ্চার

মোড : সিঙ্গেল/মাল্টিপ্লেয়ার, কো-অপ


সিস্টেম রিকোয়ারমেন্ট


প্রসেসর : কোর টু ডুয়ো ২ গিগাহার্টজ

র্যাম : ২ গিগাবাইট

গ্রাফিক্স কার্ড : ২৫৬ মেগাবাইট (পিক্সেল শ্রেডার ৩ সমর্থিত)